রায়পুরে ১১তম গ্রেডের দাবিতে প্রাথমিক সহকারি শিক্ষকদের মানববন্ধন

আখতার হোসাইন খান
বিশেষ প্রতিনিধি


রায়পুর উপজেলার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড ও শতভাগ পদোন্নতির দাবীতে মানববন্ধন করেছে শিক্ষকরা। পরে তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের  মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন। রায়পুর উপজেলা পরিষদের  সামনে দুপুরে এই মানববন্ধনের আয়োজন করে রায়পুর উপজেলা সহকারি  প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

শিক্ষক নেতারা জানান, বর্তমানে একজন প্রধান শিক্ষক যে স্কেলে চাকরী শুরু করেন, একজন সহকারী শিক্ষক সেই স্কেলের এক গ্রেড নিচে চাকরী শেষ করেন, যা সহকারী শিক্ষকদের জন্য চরম বৈষম্য। বঙ্গবন্ধুর শাসনামলে তাদের কোন বেতন বৈষম্য ছিল না। এখন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকেদের থেকে সরকারী শিক্ষকদের গ্রেড ৩ ধাপ নিচে। এই বৈষম্য দুর করা জরুরী।

সহকারী শিক্ষক নেতারা আরো জানান, তারা ২০১৪ সাল থেকে বেতন বৈষম্য নিরসনের বিষয়ে আন্দোলন করে আসছে। সর্বশেষ ২০১৭ সালে ২৩ ডিসেম্বর লক্ষাধিক সহকারী শিক্ষক ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আমরণ অনশনে বসলে ২৫ ডিসেম্বর তৎকালীন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর প্রতিশ্রুতিতে শিক্ষকরা অনশন কর্মসূচি স্থগিত করেন।

বেতন বৈষম্য দুর করার বিষয়টি আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ও নির্বাচনের পূর্বে প্রদত্ত অডিও ভয়েস কলের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীও প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বেতন বৈষম্য দুর করবেন। এখন প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন দেখতে চায়। স্কুল গুলোতে সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদ সৃষ্টি করারও বিরোধীতা করেন শিক্ষকরা। ২০১৪ সালের ৯ মার্চ থেকে শতভাগ পদোন্নতিসহ ১১তম গ্রেডে বেতন প্রদানের দাবী জানায় সহকারী শিক্ষকরা।

রায়পুর উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা শারমিন আক্তার  বলেন – মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন ও নির্বাচন পূর্ববর্তী প্রতিশ্রুতি পূরণে প্রধান শিক্ষকের ঠিক পরের ধাপে ১১তম গ্রেডে সহকারী শিক্ষকদের বেতন ভাতা দেওয়া এখন সময়ের দাবি ।

 

ছড়িয়ে দিনঃ