রাণীনগরে দিনের বেলায় হাত-পা বেঁধে ব্যবসায়ীর টাকা লুট

তানভীর আহম্মেদ , রাণীনগর ,নওগাঁ( প্রতিনিধি):
নওগাঁ’র রাণীনগরে দু’ব্যবসায়ীকে ঘরের মধ্যে আটকে রেখে হাত-পা,মূখ বেধে মারপিট করে ধারালো অস্ত্রের মূখে প্রায় পৌনে দুই লক্ষ টাকা লুট করে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় সংঘবদ্ধ চক্র তাদেরকে গলা কেটে হত্যা চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রশি,চাকু ও একটি মদের বোতল উদ্ধার করেছে। এঘটনায় ঘটনার মুল হোতা এবাদুলের স্ত্রী জলি বিবি (৩৫) কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা হেফাজতে নেয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায় উপজেলা সদরের মাছ বাজার এলাকায় । বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার সুখান গাড়ী গ্রামের রইচ উদ্দীনের ছেলে ব্যবসায়ী মামুন হোসেন (৩২) জানান, দীর্ঘ দিন ধরে তিনি পুরাতন মটরসাইকেল কেনা-বেচার ব্যবসা করে আসছিলেন। এরই সুত্র ধরে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ঝাল ঘড়িয়া গ্রামের জুয়েল হোসেন (৩৩) এর সাথে পরিচয় ঘটে। সেই সুত্র মোতাবেক বুধবার সন্ধ্যায় জুয়েল তাকে মোবাইল ফোনে জানান একটি মটরসাইকেল বিক্রি হবে। এমন খবরের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার সকালে মামুন এবং বগুড়ার কাহালু উপজেলার স্থলপাড়া রামুজি গ্রামের সোলাইমান আলীর ছেলে আব্দুল আলিম (৪০)কে সঙ্গে নিয়ে রাণীনগরে আসেন। এসময় সদর মাছ বাজারস্থ এবাদুলের মটরসাইকেল বিক্রি হবে জানালে এবাদুলের নেতৃত্বে ৪/৫ জনের সংঘবদ্ধ চক্র প্রথমে জুয়েলকে ডেকে নিয়ে এবাদুলের ভাড়া বাসায় আটকে রাখে। এর পর মামুনকে ডেকে নিয়ে তার হাত-পা,মুখ বেধে ধারালো অস্ত্রের মূখে জিম্মি করে মারপিট করে প্রায় এক লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা লুট করে নেয়। এর পর মামুনের সঙ্গে থাকা আলিমকে ডেকে নিয়ে তাকেও হাত-পা, বেধে মারপিট করে। এসময় ধারালো চাকু দিয়ে গলা কেটে হত্যা চেষ্টা করা হয় বলে মামুন দাবি করেছেন। এসময় তাদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ছুটে গেলে সংঘবদ্ধ চক্রের সবাই পালিয়ে যায় । স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে রাণীনগর হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। আলিমের মুখে,গলায় ও হাতে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। খবর পেয়ে থানাপুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রশি,ধারালো চাকু ও হাফ লিটার একটি বাংলা মদের বোতল উদ্ধার করেছে ।এসময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এবাদুলের স্ত্রী জলি বিবিকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। স্থানীয়রা জানান,ঘটনার মূল হোতা এবাদুল আত্রাই উপজেলার ভোঁপাড়া গ্রামের জয়েন আলী শেখের ছেলে ।সে দীর্ঘ দিন ধরে রাণীনগরে বাসা ভাড়া নিয়ে মটরসাইকেল কেনা-বেচার ব্যবসা করেন।এব্যাপারে রাণীনগর থানার ওসি এএসএম সিদ্দিকুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এঘটনায় এবাদুলসহ সংঘবদ্ধ চক্র পালিয়ে গেলেও এবাদুলের স্ত্রী জলিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে রশি,ধারালো চাকু ও হাফ লিটার বাংলা মদের একটি বোতল উদ্ধার করা হয়েছে।এঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ছড়িয়ে দিনঃ