দশ ব্যাংক থেকে রেমিট্যান্স আয় ৬৬ শতাংশ, এগিয়ে ইসলামী ব্যাংক

চলতি অর্থবছরের জুলাই মাস থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ১১৭ থেকে ১৪১ কোটি মার্কিন ডলারের মধ্যে ছিল বাংলাদেশের প্রবাসী আয়। তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী বেশিরভাগ রেমিট্যান্সই আসছে নির্দিষ্ট কয়েকটি ব্যাংকের মাধ্যমে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন (জুলাই-সেপ্টেম্বর) অনুযায়ী মাত্র ১০টি ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৬৫.৮৯ শতাংশ। এই দশটি ব্যাংকের মধ্যে সরকারি ব্যাংক রয়েছে তিনটি এবং বেসরকারি ব্যাংক রয়েছে সাতটি।
সরকারি ব্যাংকগুলো হচ্ছে সোনালী, অগ্রণী ও জনতা ব্যাংক। বেসরকারি ব্যাংকগুলো হলো ইসলামী ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, সাউথইস্ট ব্যাংক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, ট্রাস্ট ব্যাংক ও ডাচ-বাংলা ব্যাংক।
এদিকে ধারাবহিকভাবে বাড়ছে তৈরি পোশাক রপ্তানি। আলোচ্য সময়ে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) পোশাক রপ্তানিতে মোট ৮১৯ কোটি ১৭ লাখ ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী আগের অর্থবছরের প্রথম তিন মাসের তুলনায় ১৪.৬৬ শতাংশ বেশি।
বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী আলোচ্য সময়ে সোনালী, অগ্রণী ও জনতা ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাসী আয় হয়েছে যথাক্রমে ২৭৭ কোটি, ৩৯৫ কোটি ও ২৩৩ কোটি মার্কিন ডলার।
এই সময়ে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। তিন মাসে ৭৬৫ কোটি ডলার সমপরিমাণ প্রবাসী আয় আসে ব্যাংকটির মাধ্যমে। এছাড়া বেসরকারি খাতের ন্যাশনাল ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, সাউথইস্ট ব্যাংক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, ট্রাস্ট ব্যাংক ও ডাচ-বাংলা ব্যাংকের মাধ্যমে যথাক্রমে ১২৯ কোটি, ১৪০ কোটি, ১৩৪ কোটি, ১২৯ কোটি, ১২৮ কোটি ও ২১৮ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, জুলাই মাসে এসেছে ১৩১ কোটি ৮২ লাখ ডলার, আগস্ট মাসে ১৪১ কোটি ১০ লাখ ডলার ও সেপ্টেম্বর মাসে এসেছে ১১৩ কোটি ৯০ লাখ ডলার, অক্টোবর মাসে ১২৩ কোটি ৯১ লাখ ও নভেম্বর মাসে ১১৭ কোটি ৮২ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে বাংলাদেশে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেপ্টেম্বর শেষে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৯৬৭ কোটি মার্কিন ডলার, বিশেষায়িত দু’টি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৪০ কোটি ডলার এবং বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ২ হাজার ৮২৭ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স।
ছড়িয়ে দিনঃ