গায়েবী মামলায় ফাঁসিয়ে ভয়ের রাজত্ব কায়েম করছেঃ সি পি বি

সিপিবি’র সংগঠক ড্রাইভার হোসেন আলীর মুক্তির দাবিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, সিপিবি’র প্রাক্তন সভাপতি কমরেড মনজুরুল আহসান খান বলেছেন, বিনা ভোটের সরকার তার শাসন টিকিয়ে রাখতে জনগণকে ভীতির কাছে জিম্মি করতে চায়। তাই নিরীহ মানুষকে গায়েবী মামলায় ফাঁসিয়ে তারা দেশে ভয়ের রাজত্ব কায়েম করেছে। তিনি সিপিবি সংগঠক ড্রাইভার হোসেন আলীকে বিনা অপরাধে গ্রেফতার এবং কল্পিত ‘নাশকতার’ ঘটনা সাজিয়ে তাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তিনি হোসেন আলীর চলমান তিন দিনের রিমান্ড অবিলম্বে বাতিলের দাবি জানান। তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের নামে তার ওপরে কোনো ধরনের শারীরিক নির্যাতন করা হলে পুলিশকে ক্ষমা করা হবে না। তিনি আরও বলেন, কোনো স্বৈরাচারই চিরস্থায়ী হয়নি। এদেশের প্রতিবাদী মানুষকে ভীতি ও আতঙ্কগ্রস্থ করে দাবিয়ে রাখা যাবে না।
১২ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার, বেলা ১১টায় শান্তিনগর বাজার সংলগ্ন সড়কে গায়েবী মামলায় নিরীহ মানুষকে ফাসানোর প্রতিবাদে এবং আশুলিয়া থানায় গ্রেফতার ড্রাইভার হোসেন আলীর রিমান্ড বাতিল ও মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল শান্তিনগর এলাকার প্রধান সড়কসমূহ প্রদক্ষিণ করে।
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র শান্তিনগর শাখার সভাপতি শ্রমিকনেতা হযরত আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন, দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক জলি তালুকদার, পল্টন থানা কমিটির সভাপতি মুর্শিকুল ইসলাম শিমুল, সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব সাহা, শান্তিনগর শাখার সম্পাদক মঞ্জুর মঈন, নারী নেত্রী রাশেদা কুদ্দুস রানু, শ্রমিকনেতা ইয়াসিন স্বপন, তৌফিকুল ইসলাম, যুবনেতা জাহিদ নগর, ছাত্র ইউনিয়ন পল্টন থানা কমিটির সভাপতি বিল্লাল হোসেন প্রমুখ।
মানববন্ধনে সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক জলি তালুকদার বলেন, দেশে একের পর এক ধর্ষণ, হত্যাকা-, যৌন নিপীড়নের ঘটনা ঘটছে, ব্যাংক লুট হয়ে যাচ্ছে কিন্তু কোনো অপরাধীর বিচার হচ্ছে না। অন্যদিকে হোসেন অলীর মত নিরীহ মানুষকে নির্যাতন করতে পুলিশ বাহিনী বিরাট সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গকন্যা’ নুসরাত দুই বছর আগে বখাটের দ্বারা শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছিল তখনও অপরাধীর শাস্তি হয় নাই। এ বছর সে যখন শিক্ষকের দ্বারা যৌন নিপীড়নের শিকার হয়ে পুলিশির কাছে অভিযোগ করতে গিয়ে থানার ওসির দ্বারা আবারো যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে। পুলিশ প্রশাসন তনু হত্যা, সাগর-রুনি হত্যাকা-সহ গুরুতর অপরাধের সাথে জড়িতদের চিহ্নিত পর্যন্ত করতে পারে না। তারা নির্দোষ ব্যক্তিদের ওপর জুলুম-নির্যাতন ও মামলা বাণিজ্য করতে ব্যস্ত। তিনি আরও বলেন, পুলিশ হোসেন আলীর বিরুদ্ধে আদালতে যে নথি দাখিল করেছে সেখানে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রমাণ হিসেবে বলা হয়, ‘আসামী শ্রমিক বাঁচাও লেখা বিশেষ ধরনের গেঞ্জি পরিহিত ছিল।’ তিনি বলেন যে পুলিশ এবং ম্যাজিস্ট্রেট ‘শ্রমিক বাঁচাও’ কথাটিকে অপরাধমূলক মনে করে সংবিধান সমুন্নত রাখতে তাদের অবিলম্বে অব্যহতি দেয়া উচিত।
উল্লেখ্য শান্তিনগরের বাসিন্দা হোসেন আলী একজন ভাড়ায় চালিত মাইক্রোবাস চালক। গত ৮ এপ্রিল কয়েকজন ব্যাংক কর্মকর্তা তার গাড়ি ভাড়া নিয়ে ঢাকা ইপিজেডে কারখানা পরিদর্শনে যান। গাড়ি পার্কিং সংলগ্ন এলাকায় আগে থেকেই চলমান শ্রমিক অসন্তোষকে কেন্দ্র করে সমবেত শ্রমিকদের জটলায় কৌতুহলবশত তিনি শ্রমিকদের সাথে কথা বলেন। তার পরিহিত টি-শার্টে ‘শ্রম শক্তিই ভবিষ্যৎ’ কথাটি লেখা ছিল। যে টি-শার্টটিতে ঢাকাস্থ জামালপুরবাসী ড্রাইভারদের একটি সমিতির নাম অঙ্কিত ছিল। সেখান থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী এবং নাশকতাকারী হিসেবে পুরাতন একটি গায়েবী মামলায় তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে। আজ তার চলমান রিমান্ডের শেষ দিন।
ছড়িয়ে দিনঃ